বিশ্বকাপে ম্যাচ পরিচালনায় নিযু’ক্ত রেফারিদের কো-অর্ডিনে’টর হিসেবে কাজ করবেন, কাতার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনে সহকারী রেফারি হিসেবে কাজ করা বাংলাদেশের শিয়াকত আলী। ৯ বছর ধরে কাতারে সহকারী রেফারি হিসেবে কাজ করছেন চট্টগ্রামের ছেলে শিয়াকত। এরইমধ্যে পরিচালনা করেছেন ঘ’রোয়া ফুটবলের প্রায় চার হাজার ম্যাচ।

 

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের হয়ে প্রতিনি’ধিত্ব করার সুযোগ পেয়ে গ’র্বিত এই রেফারি। নিজের মেধা ও শ্রম দিয়ে বিশ্বকাপে সেরাটা দিয়ে বাংলাদেশের নাম উ’জ্জ্বল করতে চান শিয়াকত। আগামী ২০ নভেম্বর থেকে মরুর বু’কে ফুটবল বিশ্বকাপে মাঠের খেলায় না থেকেও জ’ড়িয়ে আছে বাংলাদেশের নাম। কাতার বিশ্বকাপে ম্যাচ পরিচালনায় নিয়োজিত থাকবেন সারা বিশ্বের ৩৬ জন রেফারি, ৬৯ জন সহকারী রেফারি ও ২৪ জন ভি’ডিও ম্যাচ অফিসিয়াল।

 

তাদের স’ঙ্গে সমন্ব’য়কারী হিসেবে কাজ করবেন বাংলাদেশের রেফারি শিয়াকত আলী। ২০১৩ সালে কাজের সূত্রে কাতারে পাড়ি জমান চট্টগ্রামের ছেলে শিয়াকত আলী। সেখানে বা’র্সেলো’নার একটি রেফারি অ’ন্বেষণ কার্যক্রমে অংশ নিয়েই ক’পাল খুলে যায় তার। প্রথমে কাতার ফুটবলে ১৬ দিনের রেফারি প্র’শিক্ষ’ণ শেষ করেন।

 

এরপর কাতারের স্পা’য়ার একাডেমি থেকে রে’ফারিং অ্যান্ড স্পোর্টস সাইকোলজিতে স্না’তক সম্প’ন্ন করেন। এরইমধ্যে রেফারিংয়ের ওপর সি ও ডি ডিপ্লোমা কো’র্স শেষ করেছেন। কাতার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনে কাজ করছেন সহকারী রেফারি হিসেবে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি একমাত্র বাংলাদেশি রেফারি কো-অর্ডিনেটর শিয়াকত।

 

কাতার বিশ্বকাপের ম’ঞ্চে দক্ষিণ এশিয়া থেকে একমা’ত্র রেফারি কো-অর্ডিনেটর হিসেবে দায়ি’ত্ব পালনের সুযোগ পেয়ে খুশি তিনি। গণমা’ধ্যমের মু’খোমুখি হয়ে শিয়াকত আলী বলেন, ‘কাতার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন এবং ফিফা কর্তৃপ’ক্ষ রেফারিদের কো-অর্ডিনেটর হিসেবে ১০ জনকে নিয়ো’গ দিয়েছে।

 

এর মধ্যে দক্ষিণ এশিয়া থেকে আমি যোগ হয়েছি। বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে প্রতিনিধি’ত্ব করার সুযোগ পেয়ে আমি গর্বিত। সকলের কাছে দোয়া চাই। ক’ঠোর পরিশ্রম দিয়ে নিজেকে আরও এগিয়ে নিতে চান শি’য়াকত। তিনি বলেন, ‘এখানে আমার দায়িত্ব পালন, আমার দেশকে প্রতিনি’ধিত্ব করবে।

 

আমার পক্ষ থেকে আমি চে’ষ্টা করব যেন দায়িত্ব সুন্দর ও ভালোভাবে পালন করতে পারি। সুযো’গ পেলে বাংলাদেশের রেফারিদের স’ঙ্গেও কাজ করতে চান জানিয়ে শিয়াকত বলেন, ‘সামনে কাতারের রেফারি এবং আমাদের রেফারিদের জন্যেও কাজ করতে চাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *