বিশ্বকাপের ম্যাচ আয়োজন করতে পুরোপুরি প্র’স্তুত কাতারের খালিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়াম। এই ভেন্যুতেই অনু’ষ্ঠিত হবে তৃতীয় স্থান নির্ধারণীসহ বিশ্বকাপের আটটি ম্যাচ।

 

দ্যা গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ উপলক্ষে বা’ড়ানো হয়েছে ভেন্যুটির দর্শক ধারণক্ষ’মতা। এছাড়া স্টেডিয়ামের ভেতরে রয়েছে দর্শকদের জন্য বিনোদনের নানা ব্যবস্থাও। ২০২২ ফুটবল বিশ্বকাপ উপলক্ষে আয়োজক দেশ কাতার যে আটটি স্টেডিয়াম প্র’স্তুত করেছে তার মধ্যে অন্যতম খালিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়াম।

 

আট স্টেডিয়ামের মধ্যে আয়োজক দেশটি সর্বপ্রথম প্রস্তু’ত করতে সক্ষ’ম হয় এই খালিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়াম। দোহায় অবস্থিত স্টেডিয়ামটি কাতারের জাতীয় স্টেডিয়াম হিসেবেই বেশি পরিচিত সবার কাছে। নির্মাণের পর মূলত এটি প্রথম উ’ন্মোচন হয় ১৯৭৬ সালে।

 

একের পর এক বড় বড় স্পোর্টস ইভে’ন্ট সফলভাবে আয়োজন করে এরই মধ্যে নজর কে’ড়েছে ভেন্যুটি। এবার বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় আসর দ্যা গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ আয়োজনের অপে’ক্ষায় খালিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়াম। এর আগে স্টেডিয়ামটি ২০০৫ সালে একবার এবং ২০১৪-১৭ সালে একবার সং’স্কার করা হয়।

 

কাতার বিশ্বকাপ উপলক্ষে এবার আরেক দফা সং’স্কার করা হলো ভেন্যুটি। আগে এর দর্শক ধারণক্ষ’মতা ছিলো ২০ হাজার। কিন্তু বিশ্বকাপ ফুটবল উপল’ক্ষে এখন তা বা’ড়িয়ে করা হয়েছে ৪৫ হাজার। এদিকে, দর্শকদের জন্য স্টেডিয়ামে আছে নানা রকম বিনোদনের ব্য’বস্থাও।

 

একটি মল ছাড়াও স্টেডিয়ামে আছে হোটেল, পার্ক এবং একটি পাঁচতলা বিশিষ্ট স্পোর্টস মিউজিয়াম। বিশ্বকাপ চলাকালে যা উ’ন্মুক্ত থাকবে সাধারণ দর্শকের জন্য। ফিফা ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপ ছা’ড়াও, ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপ, এএফসি এশিয়ান কাপ, এশিয়ান গেমসসহ আরো অনেক বড় বড় ইভেন্ট আয়োজন করার মতো অভিজ্ঞ’তা আছে স্টেডিয়ামটির।

 

এবার বিশ্বকাপ ফুটবল আয়োজন করে নতুন এক মাত্রা যো’গ হতে যাচ্ছে ভেন্যুটির ইতিহাসে। বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের ছয় ম্যাচ ছাড়াও, একটি রাউন্ড অব সি’ক্সটিন ও তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে এই খালিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *