কাতার বিশ্বকাপ চলাকালীন দোহা কর্নিশে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে বলে ঘোষণা করা হয়েছে। কাতারের গভর্নমেন্ট কমিউনিকেশন অফিসের (জিসিও) অফিসিয়াল মুখপাত্র মোহাম্মদ নুওয়াইমি আল হাজরি আজ মন্ত্রিসভা থেকে এই সিদ্ধান্ত জানিয়েছে।

 

জানানো হয়েছে, দোহা কর্নিশে নভেম্বর মাসের ১ তারিখ থেকে ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত যানবাহন চলাচল করতে পারবে না। এই সময়ে শুধুমাত্র পথচারীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে দোহা কর্নিশ।

 

আগামী ২০ নভেম্বর শুরু হয়ে ১৮ ডিসেম্বর শেষ হবে গ্রেটেস্ট শো অন দ্য আর্থ। ব্যয়বহুল এই বিশ্বকাপ সফল করতে পুরোপুরি ভাবে প্রস্তুত কাতার। কাতারের আটটি স্টেডিয়ামই হচ্ছে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত।

 

মাঠেও কুলিং সিস্টেম থাকবে মাঠ ঠাণ্ডা রাখার জন্য। আটটি স্টেডিয়ামে খেলা হবে এবারের বিশ্বকাপ। সর্বোচ্চ দর্শক আসন আছে লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়ামে- আশি হাজার। আর বেশ কয়েকটি স্টেডিয়ামে সর্বনিম্ন চল্লিশ হাজার।

 

স্টেডিয়ামগুলোর ইতিহাস, উৎস, সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে ধারাবাহিক প্রতিবেদন পাবেন মানবজমিনে কাল থেকে। আজ বরং একটু একনজরে দেখে নিই কাতার বিশ্বকাপকে। ব্রাজিলে একটি স্টেডিয়াম থেকে অন্যটির সর্বোচ্চ দূরত্ব তিন হাজার এক শ’ চল্লিশ কিলোমিটার।

 

সব থেকে কম দূরত্ব- তিন শ’ চল্লিশ কিলোমিটারের। কাতারে দুটো স্টেডিয়ামের সর্বোচ্চ দূরত্ব পঞ্চান্ন কিলোমিটারের। সর্বনিম্ন দূরত্ব সাড়ে চার কিলোমিটারের। কাতারে যে আটটি স্টেডিয়ামে খেলা হবে সেগুলো হলো- লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়াম, অল খোর-এর অল বয়াত স্টেডিয়াম।

 

অল ওয়াখনার আলজানা উব স্টেডিয়াম, আহমেদ বিন আলি স্টেডিয়াম, খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়াম, অল রিহায়ন-এর এডুকেশন সিটি স্টেডিয়াম, স্টেডিয়াম ৯৭৪ ও দোহার অল থুনামা স্টেডিয়াম। এই স্টেডিয়ামগুলোর সবই প্রায় নতুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *