কাতারে হোটেলের ভাড়া বেড়েছে তিন থেকে চার গুণ, চাহিদা মতো পাওয়া যাচ্ছেনা রুম

কাতারে প্রথম ফুটবল বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার আগে থেকেই, সমগ্র উপসাগ’রীয় অ’ঞ্চল বিমান ভ্রমণ, পর্যটন এবং আ’তিথেয়তা শিল্পে এক ধরনের আ’লোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। মাসব্যাপী টুর্নামেন্টের সময় ১.২ মিলিয়ন দর্শকের আগমন কাতারি অর্থনীতিতে ১৭ বিলিয়ন যোগ করবে বলে অনুমা’ন করা হচ্ছে।

 

আর কিছুদিন পর থেকেই দর্শ’করা পৃথিবীর সর্বশ্রে’ষ্ঠ ক্রীড়া দেখার জন্য দেশটির হোটেলগুলোতে ভি’ড় জমাতে শুরু করবেন। তবে কাতারের আ’কার ছোট হওয়ার কারণে হোটেলগুলোতে দর্শকদের জন্য ঘরের সংখ্যা ক’ম পড়ছে। এই বছরের মার্চ পর্যন্ত ৩০ হাজার হোটেল ক’ক্ষের ব্যবস্থা করা গেছে।

 

যার জে’রে অনুরাগীরা অন্য কোথাও হোটেলের অনুস’ন্ধান করছেন। কাতারে হোটেলের ঘাট’তির জেরে দামও বাড়ছে চড়চ’ড়িয়ে। কাতারের ব্যবসায়ী তারিক আল-জাইদাহ আরব নিউজকে বলেছেন, ‘হোটেলের ভাড়া ইতিমধ্যে তিন থেকে চার গুণ বেশি, তাই আপনি ইতিমধ্যেই বিশ্বকাপের প্র’ভাব অনুভব করতে পারেন।’

 

আল-জাইদাহের পারিবারিক ব্যবসা ‘জাইদাহ হোল্ডিংস’, ডব্লিউ দোহা হোটেল অ্যান্ড রেসিডেন্স, মধ্যপ্রাচ্য এবং উত্তর আফ্রিকার প্রথম ব্র্যান্ড হোটেল। এই গোষ্ঠীটি ইউরোপজুড়ে বড় বড় বিলাসব’হুল হোটেল পরিচালনা করে, যার মধ্যে রয়েছে ভেনিসের গ্রিটি প্যালেস, ওয়েস্টিন এক্সেলসিওর এবং ফ্লো’রেন্সের সেন্ট রেজিস।

 

আল-জাইদাহের ভাই, ইব্রাহিম এম জাইদাহ, গ্রুপ সিইও এবং আরব ইঞ্জিনিয়ারিং ব্যু’রোর প্রধান স্থপতি আল-থুমামা স্টেডিয়ামটি ডি’জাইন করেছেন। যেখানে কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত ম্যাচের জন্য ৪০ হাজার দর্শক বসবে। গ্রিফিথস যো’গ করেছেন-‘কাতারে হোটেলের ধারণক্ষ’মতা মোটামুটি সীমিত এবং আমাদের এখানে অফার করার জন্য অনেক কিছু আছে।’ ইতিমধ্যেই সংযুক্ত আরব আমিরাতের হোটেল ক’ক্ষগুলো আগেভাগেই সব বু’কিং হয়ে গেছে।

 

জুলাই মাসে, দেশে হোটেলের হার ২০ শতাংশ বৃ’দ্ধি পেয়েছে, অনেক শিল্প বিশেষ’জ্ঞরা টুর্নামেন্ট চলাকালীন ১০০ শতাংশ দখ’লের আশা করছেন। ট্র্যাভেল এজেন্সিগুলোরও চাহিদা ঊর্ধ্বগ’তিতে। সংযুক্ত আরব আমিরাতভিত্তিক কোম্পানি এক্সপ্যাট স্পোর্ট ‘দুবাই এক্সপেরিয়েন্স’ প্যাকেজের বি’জ্ঞাপ’ন দিচ্ছে। এক্সপ্যাট স্পোর্টের নির্বাহী পরিচালক সু হল্ট আরব নিউ’জকে বলেছেন-‘আন্তর্জাতিকভাবে আমরা ইউকে, দক্ষিণ আমেরিকা, মেক্সিকো, ভারত এবং চীন থেকে আমাদের ফুটবল ভ’ক্তদের দুবাই অভি’জ্ঞতার সর্বোচ্চ চাহিদা দেখছি।

 

টুর্নামেন্টের প্রাথমিক পর্যায়ে দুবাইতে সময় কা’টাতে, তারপর নির্দিষ্ট গেমের জন্য প্রতিদিনের শা’টল ফ্লাইট ধরতে ই’চ্ছুক অ’সংখ্য ব্যক্তিরা অনুস’ন্ধান চালাচ্ছেন। উদ্বোধ’নী উইকএন্ডটি আমাদের সবচেয়ে জনপ্রিয় প্যাকেজ, সমস্ত উপল’ব্ধ রুম প্রায় সবক’টি বিক্রি হয়ে গেছে।’ দুবাইয়ের চারপাশে ফ্যান জোন স্থাপন করা হবে, যার মধ্যে রয়েছে ৫৩৩ রুমের দুবাই দ্য পাম, শহরের পাম-আকৃ’তির দ্বী’পে একটি বিশাল নতুন বিলাসবহুল হোটেল।

 

ফুটবল-থিমযু’ক্ত হোটেলটি দোহায় ৪০ মিনিটের ফ্লাইট নিতে ই’চ্ছুক অতিথিদের হোস্ট করবে। দুবাইয়ের গেটস হসপিটালিটির প্রধান নির্বাহী এবং প্রতিষ্ঠাতা নাইম মাদ্দাদ আরব নিউ’জকে বলেছেন-‘এই অঞ্চলে বিশ্বকাপের মতো এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্ট সং’ঘ’টিত হওয়া নিঃস’ন্দেহে সংযুক্ত আরব আমিরাত, প্রধানত দুবাইতে আরও ফুটবল এবং রাজ’স্ব চালিত করবে।

 

‘এ ছাড়াও বিশ্বকা’পের টিকিট যাদের কাছে আছে তাদের জন্য এখন মা’ল্টিপল-এন্ট্রি ভিসার ব্যবস্থা থাকছে, যা অতিরি’ক্ত রাজস্ব সংগ্র’হের পথ তৈরি করবে। পুরো শহরজুড়ে অসংখ্য খাদ্য ও পানীয়ের আউটলেটের ব’ন্দোব’স্ত থাকছে।

এই ক্যাটাগরির আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *