আর কিছু দিন পর কাতারে ব’সতে যাচ্ছে ‘দ্য গ্রেটেস্ট শো অন দ্য আর্থ’ ফুটবল বিশ্বকাপ। ২০২২ ফুটবল বিশ্বকাপের দা’য়িত্ব পেয়ে বেশকিছু স্টেডিয়াম বানানো সহ উন্ন’য়নমূলক কাজ শুরু করে কাতার সরকার।

 

আর এই কাজ করতে গিয়ে আহ’ত হয় অনেক শ্রমিক। সেইসঙ্গে শ্রমিকদের মানবাধিকার ক্ষু’ন্ন করেছে বলে অভিযো’গ তুলে বেশ কিছু মানবাধিকার সংস্থা। কাতারে বিশ্বকাপের অবকাঠামো নির্মাণকালে আহ’ত অভিবাসী শ্রমিকদের জন্য একটি ক্ষ’তিপু’রণ তহবিল চালু করা হয়েছে।

 

বৃহস্পতিবার (১৩ অক্টোবর) এই তথ্য জানিয়েছে বিশ্ব ফুটবলের নিয়’ন্ত্রণ সংস্থা ফিফা। কাতারের শ্রমিক অধিকার বিষয়ক ইউরোপীয় একটি কাউন্সিলে ফিফার সহ-সাধারণ সম্পাদক আলাসদাইর বেল বলেন, ‘বিশ্বকাপের কাজ করার সময় যারাই চো’ট পেয়েছেন, সেটা দেখার চেষ্টা কা’রাটা গুরুত্বপূর্ণ।

 

বিষয়টি সহজ নয়, এর জন্য চি’ন্তার প্রয়োজন। এরজন্য কা’ঠামো, নিয়ম ও অনুশাসন ইত্যাদির প্রয়োজন। এটি এমন একটি বিষয় যেটিকে এগিয়ে নিতে আমরা আগ্রহী। ২০১০ সালে মধ্যপ্রাচ্যের র’ক্ষণশীল ছোট্ট দেশটি বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব পাবার পর থেকেই আলোচনার কেন্দ্রবি’ন্দুতে চলে আসে মানবাধি’কারের বিষয়টি।

 

চলতি বছরের শুরুতেই কাতারে ‘নি’পীড়ি’ত’ কর্মীদের জন্য ৪৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের একটি তহ’বিল গঠনের জন্য ফিফার প্রতি দা’বী জানিয়েছিল অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

 

ঠিক ভাবে শ্রমিকদের ম’জুরী না দেয়া এবং কাজ করার সময় হ’তাহ’ত শ্রমি’কের সংখ্যা কম দেখিয়েছে বলে কাতারকে অভিযো’গের মু’খোমুখি করা হয়।

 

অবশ্য আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের রিপো’র্টে প্রচারিত অভিবাসী শ্রমি’কদের হ’তাহ’তের সংখ্যার বিষয়টি অ’স্বীকার করে আসছে কাতার। তাদের ভাষ্য, বিশ্বকাপের আয়োজক স্ব’ত্ত পাবার পর থেকে তারা তাদের কর্মসংস্থান বিধিতে একাধিক সং’স্কার এনেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *