আজ সকালে যশোরের মনিরামপুরে স্মরণপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভব’নের পেছনে একটি পরিত্য’ক্ত স্কু’লব্যাগ থেকে ১৯ লাখ ৬১ হাজার টাকা পাওয়া গেছে। আজ রবিবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে স্কু’লব্যাগ ভর্তি টাকা দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয় স্থানীয়রা। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৮ জনকে আট’ক করা হয়েছে।

 

আট’ককৃ’তরা হলেন স্মরণপুর গ্রামের গ্রামপুলিশ রমজান আলীর ছেলে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোর বিক্র’য়কর্মী সোবহান আলী (২৮), একই গ্রামের ইউনুছ আলীর ছেলে অপর বিক্রয়কর্মী জুবায়ের হোসেন ও ফুরকান আলীর ছেলে আজাদ (২৫)। বাকিদের প’রিচয় এখনো জানা যায়নি।

 

জানা গেছে, উ’দ্ধার টাকাগুলো ব্রিটিশ-আমেরিকান টোব্যাকোর ঝিকরগাছা শাখা দপ্তরের। গতকাল শনিবার রাতে দপ্ত’রটির তা’লা ভে’ঙে ২৬ লাখ টাকা ছি’নতা’ই হয়ে যায়। এ ঘটনায় ওই কোম্পানির শাখা ব্যবস্থাপকসহ ছয় ক’র্মীকে রাতেই আ’টক করেছে ঝিকরগাছা থানার পুলিশ। আজ সকালে আরও দুজনসহ মোট আট’জনকে আ’টক করা হয়েছে।

 

এ বিষয়ে স্মরণপুর গ্রামের গ্রামপুলিশ রমজান আলী বলেন, আজ সকালে স্মরণপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনের পেছনে স্কুলব্যাগ ভর্তি টাকা পাওয়া যায়। এরপর ঝিকরগাছা থানার পুলিশ ও মনিরামপুরের খেদাপাড়া ক্যাম্পের পুলিশ এসে লোকজনের সামনে গুনে দেখে ব্যাগে ১৯ লাখ ৬১ হাজার টা’কা রয়েছে।

 

উ’দ্ধারকৃ’ত ব্যাগের খবর প্রথমে পুলিশকে মোবাইল ফোনে জানান স্কু’লের পাশের বাড়ির জুবায়ের। পরে এলাকার লোকজন টাকা পাওয়ার কথা শু’নে সেখানে জ’ড়ো হয়। এ সময় গ্রামের আজাদ নামে এক যুবক তিন বা’ন্ডিল (২ লাখ) টাকা নিয়ে দৌড় দেন। পরে গ্রামের লোকজন তাঁ’কে তা’ড়া করে সেই টাকা উ’দ্ধার করেন।

 

এ সময় রমজান আলী আরও বলেন, ‘আমার ছেলে সোবহান ব্রিটিশ-আমেরিকান টোব্যাকোর ঝিকরগাছা শাখা দপ্তরে বিক্রয়কর্মী হিসেবে কাজ করেন। গতকাল রাতে আমার ছেলেসহ অন্যরা দ’প্তরে কাজ করছিল। পরে রাত সাড়ে ১০টার দিকে দপ্তর থেকে ২৬ লাখ টাকা ছি’নতা’ই হয়ে যায়। এ খবর পেয়ে রাতে পুলিশ আমার ছেলেসহ অফিসের ছয়জনকে আ’টক করেছে।’

 

তিনি বলেন, শুধু তাই নয়, আমাদের গ্রা’মের জুবায়ের নামে একটা ছেলে ওই দ’প্তরে বিক্রয়কর্মী হিসেবে কাজ করেন। গত দুই-তিন দিন কাজে যাননি তিনি। আজ সকালে তারই বাড়ির পাশে টাকার ব্যা’গ পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, জুবায়ের ছি’নতা’ইয়ের স’ঙ্গে জ’ড়িত। টাকা লু’কাতে না পেরে স্কুলের পেছনে টাকা ফে’লে রেখে পুলিশে খবর দিয়েছেন।

 

এ বিষয়ে খেদাপাড়া ক্যাম্প পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) সমেন বিশ্বাস বলেন, ঘটনাটি ঝিকরগাছা থানার অন্তর্ভুক্ত। আজ সকালে তারা এসে টা’কা উ’দ্ধার করে নিয়ে গেছে। আমি তাদের সহযোগিতা করেছি। এদিকে ঝিকরগাছা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ওয়াহেদুজ্জামান বলেন, ‘টাকা গ’ণনার কাজ চলছে। আমরা জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কয়েকজনকে হে’ফাজতে নিয়েছি। পরে বিস্তারিত জানাতে পারব।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *