সম্প্র’তি বাংলাদেশে এসেছিলেন কলকাতার জনপ্রিয় অ’ভিনেতা সৌরভ দাস। এসেই মিথিলাকে ফোন, ‘দো’স্ত আমি তো তোমার দেশে, আমি এখন ঢাকায়।’ মিথিলা উ’ত্তর দিলেন, ‘তাই নাকি? তাহলে বা’সায় চলে আসো।’ ‘আচ্ছা কাজ শেষ করে আসবো।’ ঢাকায় নামার পর কলকাতার ‘বীরসা ব’সাক’ খ্যাত জনপ্রিয় অভিনেতা সৌরভ দাসের স’ঙ্গে মিথিলার এমনই ক’থোপকথন হয়।

 

আজ ম’ঙ্গলবার বিকেলে গণমাধ্যমের সঙ্গে আলা’পের সময় রাফিয়াত রশিদ মিথিলা এমন’টাই জানালেন। মিথিলা বলেন, ‘ও আমার খুব ভালো ব’ন্ধু। তুই তো’কারি টাইপেরও। ওকে আমি বাংলাদেশের কাল’চার শিখিয়েছি। যার ফলে সে এসে আমাকে দোস্ত দো’স্ত করে বলছিল। এটা কলকাতাতেও বলে। ওকে আমাদের অ’ভ্যাসগুলো ভালো করে শিখিয়ে দিয়েছি।’

 

এদিকে সৌরভ দাস ভারতের বাংলা ভাষার বেসরকারি স্যা’টেলা’ইট টেলি’ভিশন জি বাংলার ধারাবাহিক ‘ব’য়েই গেলো’তে অভিনয়ের মাধ্যমে ছোট পর্দায় অ’ভিষি’ক্ত’ হন। এতে তিনি ধারাবাহিকের নায়ক অর্জুনের কাকাতো ছোটভাই বীরসা বসাক চরিত্রে অ’ভিনয় করেন।

 

বলিউড চলচ্চিত্রে তাঁ’র আ’ত্মপ্র’কাশ হয়, ওনির রচিত-পরিচালিত কুছ ভিগে আলফা’জ্জ ছবিটির মাধ্যমে। তিনি অ’ঞ্জন দত্ত, অরিন্দম শীল, বিরসা দাশগুপ্ত, কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়, এবং রাজ চক্রবর্তীর মতো প্রশংসিত বাংলা চলচ্চিত্র পরিচা’লকদের সাথে কাজ করেছেন।

 

জি বাংলা সিনেমার চলচ্চিত্র চো’রে চো’রে মা’সতু’তো ভাই -এ প্লেব্যাক গায়ক হিসাবে আ’ত্মপ্র’কাশ করেছিলেন। ‘মন্টু পাইলট’ ওয়েব সিরিজে কাজ করতে গিয়ে সৌর’ভের স’ঙ্গে বেশ ভালো ব’ন্ধুত্ব গড়ে ওঠে মিথিলার। এই বন্ধুত্বের নমুনা কলকাতা ছা’ড়িয়ে ঢাকাতেও দেখা গেল। আম’ন্ত্রিত অতিথিকে বাংলাদেশের প্রায় সব নামী খাবার খাইয়েছেন ব’ন্ধু মিথিলা।

 

মিথিলা বলছিলেন, ‘ওকে বাসায় দাওয়াত দিয়ে যা যা খাবার রয়েছে সব রান্না করে খাইয়ে’ছি। অবশ্য আমি রান্না করিনি। মা রান্না করেছে। আমার মা-বাবার সঙ্গেও সৌর’ভের বেশ ভালো খাতির। যার ফলে ওর খাতির য’ত্ন ভা’লোভাবেই হয়েছে।’ সম্প্রতি শাহরিয়ার কবিরের জনপ্রিয় কিশোর উপন্যাস ‘নুলিয়াছড়ির সোনার পাহাড়’ চলচ্চিত্রে চু’ক্তিব’দ্ধ হওয়া মিথিলাকে জি’জ্ঞেস করা হয়েছিল- কী কী খাইয়ে’ছেন সৌরভকে? ধীরে ধীরে মনে করে বলার চেষ্টা করছিলেন তিনি।

 

তিনি জানান, তালিকায় ছিল পোলাও, একাধিক প’দের মাংস, বিভিন্ন ধরনের ভর্তা, মাছ বেশ কয়েক পদের, শু’টকি ছিল বহু ধরনের। মিথিলা বলেন, ‘ওর শু’টকি ভীষণ পছন্দের। যার ফলে শু’টকির প্রতি ওর আগ্রহ ছিল। মা এসব যত্ন নিয়ে রান্না করেছিলেন।

 

খেয়ে-দেয়ে সৌরভ কি তৃ’প্ত? এ প্রশ্নের জবাবে মিথিলার সহজ জবাব, ‘এটা তো সৌরভই ভালো বলতে পারবে?’ তারপরেও খাওয়ার পর তৃ’প্তির ঢে’কুর তোলে, সেটা দেখা তো যায়? এ প্রশ্নের জবাব না দিয়ে হাসলেন মিথিলা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *