নোয়াখালীর সারোয়ারকে বিয়ে করতে কান্নাকাটিও করেছেন মিসরীয় তরুণী

নোয়াখালীর সেনবাগের তরু’ণকে বিয়ে করে বাংলাদেশে এসেছেন মিসরীয় তরুণী দালিয়া (২৬)। তার স্বা’মীর নাম গোলাম সারোয়ার বাবু (২৬)। তার বাড়ি সেনবাগ উপজেলার নবীপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের গোবিন্দপুরে।

 

এদিকে বি’দেশ থেকে আসা বধূকে দেখতে বাবুর বাড়িতে ভি’ড় করছেন এলাকার মানুষ। বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) সন্ধ্যায় এই দম্প’তি গ্রামের বাড়িতে আসেন। তারা ২০২০ সালের মিসরে বিয়ে করেছেন। বিয়ের পর এবারই তারা প্রথম বাংলাদেশে এসেছেন।

 

গোলাম সারোয়ার বাবু বলেন, ‘আমি ২০১২ সালে জীবিকার স’ন্ধানে মি’সর যাই। সেখানে একটি গার্মেন্টে চা’করি করি। কারখানার পাশেই ছিল দালি’য়াদের বাসা। এর সুবাদে তার ভাইয়ের স’ঙ্গে ব’ন্ধুত্ব হয়। মাঝেমধ্যে দালিয়ার বাসায় আমার যাওয়া হ’তো। একসময় দালিয়াকে ভালোলাগার বিষয়টি জানাই।

 

এতে সায় দিলে প্রে’মের সম্প’র্ক গড়ে ওঠে। ২০১৮ সালে দালিয়ার পরিবারকে বিয়ের প্র’স্তাব দিলে কেউই রাজি হননি। পরে দালিয়া অনেক কা’ন্নাকা’টি করে তার মা-বাবাকে রাজি করালে ২০২০ সালে আমাদের বিয়ে হয়। গত বছর আমাদের একটি সন্তান হয়। সে সন্তান মা’রা গেছে। এবার প্রথম দুজনের একস’ঙ্গে দেশে এলাম। বর্তমানে সুখে-শা’ন্তিতে দিন কা’টাচ্ছি।’

 

বাবু আরও বলেন, ‘বিদেশি পুত্র’বধূ পেয়ে আমার বাবা-মাসহ পরিবারের সদস্যরা খুবই উ’চ্ছ্বসিত। দালিয়া বাংলা বলতে না পারলেও মিসরীয় ভাষায় সাংবা’দিকদের স’ঙ্গে কথা বলেন। এই ক্ষে’ত্রে দো’ভাষীর কাজ করেন তার স্বামী। স্ত্রীর বলা প্রতিটি শ’ব্দ সাং’বাদিকদের বুঝিয়ে দেন তিনি।

 

দালিয়া বলেন, ‘বাংলাদেশি খাবার এবং পরিবেশ ভালো লেগেছে। এটা আমার স্বামীর দেশ। এই দেশকে অনেক ভালোবাসি। তবে মাং’সের চেয়ে আলু তার বেশি পছন্দ। কারও স’ঙ্গে মনের কথা প্রকাশ করতে না পারায় খারা’প লাগছে। শ্বশুরবাড়িতে দুই মাস থাকবো।’

 

গোলাম সারোয়ার বাবুর বাবা গোলাম মাওলা মিয়া বলেন, ‘পুত্র’বধূ বাং’লা বলতে না পারলেও ইশারা-ই’ঙ্গিতে কথা বলছে। বিদেশি পুত্রবধূকে কাছে পেয়ে পরিবারের সবাই খুশি।’

 

নবীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন সোহেল বলেন, ‘বিদেশি তরুণীকে দেখার জন্য মানুষ ওই বাড়িতে ভি’ড় করছেন। গ্রামের মানুষ খুব খুশি হয়েছে। ওই দ’ম্পতির উজ্জ্ব’ল ভবিষ্যৎ কামনা করছি।’

এই ক্যাটাগরির আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *