কাতার প্রবাসী আল-আমিন গাজী (২৮)। সেখান থেকে এক নারীর ফেস’বুক আই’ডি হ্যা’ক করে ব্ল্যা’কমে’ইল করে আসছিলেন তিনি। এ ঘটনায় ওই নারী মা’মলা করেন। এ মা’মলা ত’দন্ত করে আদালতে অভিযো’গপত্র দাখিল করে পুলিশ।

 

পরে কাতার থেকে আল-আমিন গাজীকে দে’শে ফেরত পাঠানো হয়। এরপর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আল-আমিন গাজীকে গ্রে’ফতার করে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনি’টের ইন্টারনেট রে’ফারেল টিম।

 

শুক্রবার (২১ অক্টোবর) রাতে সাইবার ইনভেস্টিগেশন বিভাগের ইন্টারনেট রেফারেল টিমের সহকারী কমিশনার (এসি) ধ্রুব জ্যোতির্ময় গোপ জা’গো নি’উজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

 

তিনি বলেন, কাতারে বসে বেশ কিছুদিন ধরে একজন নারীর ফে’সবুক আই’ডি হ্যা’ক করে ব্ল্যা’কমে’ইল করে আসছিলেন কাতার প্রবাসী আল-আমিন গাজী।

 

এ ঘটনায় ২০২০ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর ডিএমপির মুগদা থানায় ডি’জিটাল নিরাপ’ত্তা আই’ন ও প’র্নোগ্রা’ফি নিয়’ন্ত্রণ আ’ইনে তার বিরু’দ্ধে মাম’লা হয়।

 

মাম’লার তদ’ন্ত শেষে কাতারে অবস্থানকারী আল-আমিন গাজীকে শনা’ক্ত করে তার বি’রু’দ্ধে ২০২১ সালের ২৩ মে মুগদা থা’নার অভিযো’গপত্র দা’খিল করা হয়।

 

ধ্রুব জ্যোতির্ময় গোপ আরও বলেন, বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) অভিযু’ক্ত আল-আমিন গাজীকে কাতার থেকে ফেরত পাঠানো হলে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে তাকে গ্রে’ফতার করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *