ফুটবল বিশ্বকাপের বাকি আর মাত্র ১৬ দিন। এবার বিশ্ব ফুটবলের মহায’জ্ঞ বসতে চলেছে কাতারে। কতারে বিশ্বকাপের অবকাঠা’মো নির্মাণকালে আহ’ত অভিবাসী কর্মীদের জন্য ক্ষ’তিপূরণ নিয়ে সো’চ্চার বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনগুলো। এ প্রে’ক্ষিতে ফিফা একটি তহবিল গঠনের ঘোষণা দিয়েছে।

 

তবে কাতার এই বিষয়ে কোনো সাহা’য্য করবে না বলে জানিয়েছে। কাতারের শ্রমমন্ত্রী আলী বিন সামিক আল মারি বলেছেন, ‘কর্মীদের বকেয়া বেতন নিয়েই এখন তারা বেশি চিন্তি’ত। এছাড়াও বর্ণবৈষম্য তাদের চি’ন্তার আরেকটি অন্যতম বিষয়। এই মুহূর্তে কর্মীদের ক্ষ’তিপূরণ নিয়ে ভাবছেন না আল মা’রি।’

 

আহ’ত কিংবা নিহ’ত কর্মীদের জন্য কাতারের একটি নিজ’স্ব ফান্ড রয়েছে। ফিফা আ’হত কর্মীদের জন্য যে ফা’ন্ডের কথা বলে তা শুধুই প্র’চার’ণার জন্যই বলেছে বলে মনে করেন কাতারের শ্রম মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘ফিফা যে ফা’ন্ডের কথা বলছে তা কাতারের বর্তমান ফা’ন্ডেরই অনুকরণে।

 

এটা ফিফার প্র’চারণার পন্থা ছাড়া আর কিছুই না। শ্রমিকদের কল্যাণে আমাদের দরজা সবসময়ই খোলা। আমরা আগেও এমন অনেক সম’স্যার সমাধান করেছি। চলতি বছরের শুরুতেই কাতারে ‘নি’পী’ড়িত’ কর্মীদের জন্য ৪৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের একটি তহ’বিল গঠনের জন্য ফিফার প্রতি দা’বি জানিয়েছিল অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

 

ঠিকভাবে শ্রমিকদের ম’জুরি না দেওয়া এবং কাজ করার সময় হ’তাহ’ত’ শ্রমিকের সংখ্যা কম দেখিয়েছে বলে আরব রাষ্ট্রটিকে অভিযো’গের মুখোমুখিও করা হয়। অবশ্য আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে প্রচারিত অভিবাসী শ্রমিকদের হ’তাহ’তের সংখ্যার বিষয়টি অ’স্বীকার করে আসছে কাতার।

 

কাতারের সঙ্গে ফা’ন্ড গঠনের বিষয়ে আলোচনা চলছে বলে জানিয়েছিলেন ফিফার এক মুখপাত্র। এরপর এই প্রথম কাতারের পক্ষ থেকে কোনও ব’ক্তব্য দেয়া হলও। আল মা’রি সোজা ভাষায় জানিয়ে দিয়েছে ফিফার ফান্ড গঠনের প্রস্তাবে তারা একমত নন। তিনি বলেন, ‘প্রতিটি মৃ’ত্যুই বেদ’নাদায়’ক। বিশ্বকাপ শ্রমিকদের নিয়ে আলা’দা ফান্ড গঠনের কোনও যৌ’ক্তিকতা নেই।

 

আহ’ত ব্যক্তিরা কোথায়? তাদের নাম কি কেউ বলতে পারবেন? আপনি তাদের কিভাবে খুঁজে বের করবেন? যদি এখনো এমন কোনো কর্মী থাকেন যারা বেতন পাননি, কিংবা আহ’ত হয়েছেন টাকা পাননি তারা আমাদের কাছে আসলে আমরা অবশ্যই তাদের সাহায্য করবো।’

 

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ব্যবসা’য়ী সংগঠনের নেতারাও আল মারির সঙ্গে একমত পোষণ করে জানিয়েছেন নতুন ফান্ড গঠন করলে বিষয়টি আরও জ’টিল হবে। ২০১৮ সালেই কাতার একটি কর্মী কল্যাণ ফা’ন্ড গঠন করেছে। যেখান থেকে শুধু এই বছরেই ৩২০ মিলিয়ন ডলার ক’র্মীদের কল্যাণে দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *