এশিয়া মহাদে’শে দ্বিতীয় বিশ্বকাপ ফুটবলের আসরটি শুরু হতে আর মাত্র ১৪ দিনের অপে’ক্ষা। মরুর দেশ কাতার ২০২২ আসরের স্বাগতিক হওয়ার পর থেকেই বি’স্তর স’মালো’চনা হচ্ছে, চলছে এখনও। ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা এবার নিদের্শনা নিয়েই হাজির হয়েছে।

 

অংশগ্রহণকারী ৩২ দেশকে কাতারের স’মালো’চনা না করে খেলায় মনোযো’গ দিতে নির্দেশ দিয়েছে সংস্থাটি। বিশেষ করে পশ্চিমা দেশগুলোর রো’ষানলে ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজকরা। প্যারিসসহ ফ্রা’ন্সের একাধিক শহর, জার্মানির পাবগুলো ইতোমধ্যেই বর্জ’ন করেছে এবারের বিশ্বকাপ। প্রকাশ্যে স’মালোচ’না করেছে অস্ট্রেলিয়ার ফুটবলাররা, নী’রব প্র’তিবাদ ডেনমার্কের।

 

শুধু তাই নয় স’মকা’মীদের সহম’র্মীতায় হ্যারি কেইনসহ ইউরোপের ৯ অধিনায়কের রঙিন আ’র্মব্যা’ন্ড পড়ার সিদ্ধান্তও অবাক করেছে ফিফাকে। বিভিন্ন সময়ে কাতার প্রতি’বাদ করেছে। ফিফাকে পাশে পেলেও অনেকটা নী’রব ছিলো বিশ্ব ফুটবলের অভিভাবক সংস্থা। কিন্তু এবার আনুষ্ঠানিকভাবে অংশগ্রহণকারী দেশগুলোকে চিঠি দিয়ে সত’র্ক করেছে ফিফা।

 

বিশ্বকাপকে সামনে রেখে মহ’ড়ার সময় গেলো সপ্তাহে কাতারে মৃ’ত্যু হয়েছে তিন ফায়ার ফাইটারের। যারা সবাই পাকিস্তা’নের নাগরিক। বিষয়টা ধা’মাচা’পা দেয়ার চেষ্টা করেছিলো কাতার, শেষ পর্যন্ত পারেনি। এ নিয়ে দুঃ’খ প্রকাশ করেছে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়। কাতারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জাবের আল নোয়াইমি বলেন, ফা’য়ার ফা’ইটারের মৃ’ত্যুতে আমরা শো’কাহ’ত।

 

নিয়মিত মহ’ড়ার অংশ নিয়ে তারা প্রা’ণ হা’রিয়েছেন। তাদের পরিবারের প্রতি সমবে’দনা। যথেষ্ট পরিমান ক্ষ’তিপূরণ তারা পাবে। কাতার বিশ্বকাপের প্রধান নাসের আল খাতের বলেন, ফুটবল বিশ্বকাপ কোন রাজনৈ’তিক মতাদর্শ প্রদর্শনের মঞ্চ নয়। এটা এমন এক আয়োজন যেখানে মানুষ খেলা উপভো’গ করতে আসে।

 

এখানে রা’জনৈ’তিক রং দেয়া ভালো কিছু মনে করি না। কম বি’ত’র্ক হচ্ছে না শ্রমিক অধিকার নিয়েও। বিদেশি শ্রমি’কদের জন্য তহবিল গঠনের আবেদন নিয়ে সরব বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা। বিষয়টি গড়িয়েছে ফিফা পর্যন্ত। তবে ইউরোপিয়ান’দের বাড়াবাড়ি প’ছন্দ হচ্ছে না কাতারের।

 

কাতার বিশ্বকাপের প্রধান বলেন, শ্রমিক অধিকার নিয়ে অনেকেই অনেক কথা বলে। অথচ এ ব্যাপার নিয়ে তাদের কোন জ্ঞা’ন নেই। আমার মনে হয়, এ ব্যাপারে তাদের আরও পড়াশোনা করা উচিত। জানা উচিত, কাতারে আসলে কি হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *