কাতার বিশ্বকাপের এমন জমকালো আয়োজনের উদ্দে’শ্য হলো বিশ্বের ফুটবলপ্রেমী মানুষকে কাতারে একত্রি’ত করা। কাতার মনে করে, এই লক্ষ্য অর্জনের একমাত্র গুরুত্বপূর্ণ হা’তিয়ার হলো খেলাধুলা।

 

ফরাসি সংবাদপত্র লে ম’ন্ডেকে দেওয়া এক সা’ক্ষাৎকারে কাতারের উপ-প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আব্দুর রহমান আল থানি এসব কথা বলেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ইতিমধ্যে আমাদের দেশ ভবিষ্য’তে বড় বড় ক্রীড়া ইভে’ন্ট আয়োজনের জন্য প্রস্তুত।

 

এক্ষেত্রে আসন্ন ২০২২ ফিফা বিশ্বকাপ একটি উ’দাহরণ মাত্র। সাম্প্রতিক কাতার বিশ্বকাপ বয়কটের আ’হ্বানের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে আব্দুর রহমান আল থানি বলেন, বিশ্বকাপ ব’য়ক’টের যেসব কারণ দেখানো হয়েছে তা গ্রহণযো’গ্য নয়।

 

বিশ্বকাপ বয়কটের মতো এমন ষ’ড়য’ন্ত্রগুলোতে অনেক ভ’ণ্ডা’মি রয়েছে। বিশ্বকাপের জন্য আমরা যে সুযোগ সুবিধাগুলো তৈরি করেছি তারা সেগুলোর কোনটিই উল্লে’খ করেনি। আল থানি আরও বলেন, ষ’ড়য’ন্ত্রকা’রীরা খুব কম সং’খ্যক লোকের মাধ্যমে বিশ্বের সর্বোচ্চ দশটি দেশে বিশ্বকাপ বিরো’ধী কার্যক্রম চালাচ্ছে।

 

এটা সত্যি দু’র্ভাগ্যজ’নক। তবে বাস্তবতা হলো পুরো বিশ্ব গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ নামে পরিচিত ফিফা বিশ্বকাপ উদযাপনের জন্য উ’ন্মুখ হয়ে আছে। ইতিমধ্যে শতকরা ৯৭ ভাগের বেশি বিশ্বকাপের টিকেট বিক্রি হয়েছে। সবচেয়ে বেশি টিকেট কেনা দ’শটি দেশের মধ্যে একটি হলো ইউরোপের অন্যতম প্রভাবশালী দেশ ফ্রান্স।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *