প্রিয় দল বা প্রিয় খে’লোয়াড়কে ঘিরে সমর্থ’কদের আবেগ আর পা’গলা’মি তো নিয়মিতই দেখা যায়। এদিক দিয়ে হয়তো আর্জেন্টিনার সমর্থকরা এগিয়েই থাকবেন। সম্প্রতি কাতার বিশ্বকাপে ছয় হাজার দা’ঙ্গাবা’জ আর্জেন্টাইন সমর্থককে নি’ষি’দ্ধ করা হয়েছে। এর বিপ’রীত দিকটাও আছে।

 

নিজের ও পরিবারের ভবি’ষ্যতের জন্য জমানো টাকা ভে’ঙেও কাতার বিশ্বকাপে যাওয়ার টাকা জো’টাচ্ছেন অনেক আর্জেন্টাইন সমর্থক। কেউ বাড়ি না বানিয়ে সেই টাকায় কিনেছেন প্লে’নের টিকিট! এই পাগল সম’র্থকদের আশা একটাই- মহাতারকা লিওনেল মেসির শেষ বি’শ্বকাপে আর্জেন্টিনার শিরোপা জয়।

 

স্রেফ এই আশাতেই তারা সর্ব’স্ব বা’জি ধরছেন। যেমন ৩৯ বছর বয়সী এমিলিয়ানো মাত্রাঙ্গো’লো নিজের থাকার জন্য বাড়ি না কিনে কাতার যাওয়ার সি’দ্ধান্ত নিয়েছেন। রয়টা’র্সকে তিনি বলেন, ‘চার বছর ধরে স’ঞ্চয় করছি। এর জন্য গাড়ি বা বাড়ি কেনার মতো শখগুলো বাদ দিতে হয়েছে। এটা একটা স্বপ্ন, একটা মো’হ।

 

অনেকে বলবে দেখো, সে একটা বাড়ির ৫% না কিনে কাতার যাওয়ার জন্য অর্থগুলো খর’চ করছে। আমি নিশ্চিত (একটি ঘর) দারুণ হবে, কিন্তু আমি বিশ্বকাপেই যাচ্ছি। এমিলিয়ানো মাত্রাঙ্গোলোর মতোই আরেক ফুটবলপ্রেমী জোনাথান লুনা।

 

৩২ বছর বয়সী এই ব্যক্তি বলেছেন, ‘দু’র্ভাগ্যজ’নকভাবে আর্জেন্টিনা সংক’টের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, যেখানে প্রতি মাসেই সব কিছুর দা’ম বাড়ছে। কিন্তু এক রাতে আমি বসে সিদ্ধান্ত নিলাম, আমি বিশ্বকাপে যাব, কারণ আমি জাতীয় দলটাকে ভালোবাসি।

 

আর্জেন্টিনায় আমি সর্বত্রই তাদের অনুস’রণ করি। এটা আমার প্রথম বিশ্বকাপ (যাত্রা) ও যখন আমি সি’দ্ধান্ত নিলাম আমার চোখে জল চলে আসে। আমি জানি জীবনের শ্রেষ্ঠ স্মৃতিগুলো নিয়েই দেশে ফিরব। হয়তো পুরো জীবন ভাড়া বাড়িতে কা’টাতে হবে। কিন্তু আমি এসব নিয়ে চি’ন্তিত নই। দলকে সমর্থন জোগাতে আমাকে যেতেই হবে। ‘

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *