আগামী ২০ নভেম্বর থেকে শুরু হতে যাচ্ছে কাতার বিশ্বকাপ। ফিফা বিশ্বকাপের ইতিহা’সে এবারই প্রথম আরব-মুস’লিম রা’ষ্ট্রে সর্বকালের সবচেয়ে ব্যয়ব’হুল বিশ্বকাপ শীতকালে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। তাই বিশ্বের নানা প্রা’ন্ত থেকে আসা দর্শক ও ভ’ক্তদের স্বাগত জানাতে বর্ণিল সাজে সেজেছে সংখ্যাগরি’ষ্ঠ মুসলিম অধ্যুষিত কাতার।

 

দেশটির রাজধানী দোহাসহ বিভিন্ন স্থানে দেখা যাচ্ছে মহানবী (সা.)-এর হাদিস সম্বলিত ম্যু’রাল। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এসব ছ’বি ব্যাপক প্রশং’সিত হয়। টিআরটি ওয়ার্ল্ড সূত্রে জানা যায়, বিশ্বকাপ ভ’ক্তদের কাছে ইসলামের সৌ’ন্দর্য তুলে ধরে অভিনব কা’য়দায় অভ্যর্থনা জানাতে এমন উদ্যোগ নেয় কাতার।

 

তাই বিভিন্ন স্থানে দেয়ালজুড়ে সাঁ’টানো হয় বর্ণিল ম্যুরাল, ব্যানার ও ফেস্টুন। এতে লেখা হয় সামাজিক শি’ষ্টাচার বিষয়ক মহানবী (সা.)-এর প্র’জ্ঞাপূর্ণ বাণী। আরবি ও ইংরেজি ভাষায় লেখা অর্থপূর্ণ হাদিসগুলো চলার পথে দর্শক ও পাঠকদের মনে তৈরি করে অন্য রকম অনুভূতি।

 

একটি দেয়ালে সাদা র’ঙের ওপর কালো বর্ণে দয়া-অনুকম্পা নিয়ে মহানবী (সা.)-এর একটি বাণী দেখা যায় যার অর্থ হলো, ‘অন্যের প্রতি দয়া করে না তার প্রতি দয়া করা হয় না’। অন্য স্থানে মহানবী (সা.)-এর আরেকটি বাণী দেখা যায় যার অ’র্থ হলো, ‘সব ভালো কাজই দান’।

 

অন্য স্থানে মানুষের সঙ্গে বিন’ম্র আচরণ ও বি’দ্বেষ প্রশমনে মহানবী (সা.)-এর আরেকটি বাণী দেখা যায় যার অর্থ হলো, ‘তোমরা সহজ কোরো, কঠিন কো’রো না। মানুষের মধ্যে শা’ন্তি স্থাপন কোরো, তাদের মধ্যে বি’দ্বে’ষ সৃষ্টি কোরো না’।

 

দ্বি’মুখী মানুষের পরিণ’তি নিয়ে একটি হাদিস দেখা যার অর্থ হলো, ‘তুমি কিয়ামতের দিন আল্লাহর কাছে সবচেয়ে খারা’প ব্যক্তি হিসেবে দ্বি’মুখী মানুষকে পাবে। সে একদলের কাছে এক রূপ নিয়ে আসে এবং অন্যদের কাছে অন্য রূপ নিয়ে আসে’।

 

দান ও সুন্দর কথা নিয়ে একটি হাদিস দেখা যায় যার অর্থ হলো, ‘তোমরা খেজুরের টু’করো দান করে হলেও আগুন থেকে নিজেকে র’ক্ষা কোরো। যদি তা না পাও তাহলে সুন্দর কথা বলে নিজেকে র’ক্ষা কোরো’। আরেক স্থা’নে সালাম দেওয়ার শি’ষ্টাচার নিয়ে মহানবী (সা.)-এর একটি হাদিস দেখা যায় যার অর্থ, ‘ছোট বড়কে, পথিক বসে থাকা ব্যক্তিকে এবং কম সংখ্যক ব্যক্তি বেশি সংখ্যক ব্যক্তিদের সালাম দেবে’।

 

আতিথেয়তা ও সামাজিক শিষ্টাচার নিয়ে মহানবী (সা.)-এর আকেরটি প্রসি’দ্ধ হাদিস দেখা যায় যার অর্থ হলো, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহ ও কিয়ামতের দিনের ওপর বিশ্বাস করে সে যেন প্রতিবেশীকে ক’ষ্ট না দেয়। যে ব্যক্তি আল্লাহ ও কিয়ামতের দিনের ওপর বিশ্বাস করে সে যেন অতিথিকে সম্মান করে। যে ব্যক্তি আল্লাহ ও কিয়ামতের দিনের ওপর বিশ্বাস করে সে যেন ভালো কথা বলে অথবা চুপ থাকে। ’

 

আরেক স্থানে বৃ’ক্ষরোপন নিয়ে মহানবী (সা.)-এর একটি হাদিস দেখা যায় যার অর্থ হলো, ‘যদি কোনো মুসলিম গাছ রোপন করে, অতঃপর কোনো মানুষ বা প্রাণী তা থেকে আহার করে, তা সেই ব্যক্তির জন্য দানস্বরূপ’। সূত্র : টিআরটি ওয়ার্ল্ড ও দোহা নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *