মঞ্চ থেকে নেমে যাচ্ছেন অভিনেতা মীর সাব্বির। ঠিক তখন পেছন থেকে তাকে ডে’কে থামান উপস্থাপিকা ইসরাত পায়েল। ফিরে আসার পর পায়েল বলেন, ‘বরিশালের আঞ্চ’লিক ভাষায় কোনো নাটকের একটি সংলা’প শুনতে চাই।’

 

মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে মীর সাব্বির বলেন—‘আমার নাটকের সংলা’প মনে থাকে না।’ তারপর খা’নিকটা সময় নিয়ে এ অভিনেতা বরিশালের আ’ঞ্চলিক ভাষায় পায়েলকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘এই মা’তারি তুমি এইরহম উদলা গা’ইয়ে দাঁড়ায় আছো কিয়ের লাইগ্যা।’

 

এ সংলা’প শেষ হওয়ার পরপরই হাসতে থাকেন পায়েল। ম’ঞ্চের সামনে বসা অতিথিরাও সম’স্বরে হেসে উঠেন। সোশ্যাল মি’ডিয়ায় ছ’ড়িয়ে পড়া একটি ভি’ডিও ক্লি’পে এমন দৃশ্য দেখা যায়। মঞ্চে বিষয়টি হে’সে উড়িয়ে দিলেও মীর সাব্বিরের এই সংলা’প নিয়ে আপ’ত্তি তুলেছেন পায়েল।

 

এক ভি’ডিও বার্তায় মীর সাব্বিরের এই সংলা’পকে ‘কুরু’চিপূ’র্ণ’ বলে মন্তব্য করেছেন পায়েল। এ ভি’ডিওতে পায়েল বলেন—‘‘গত ১১ নভেম্বর ‘মিসেস ইউনিভার্স ২০২২’-এর গ্র্যা’ন্ড ফিনালে ছিল। সেই অনুষ্ঠানটি আমি সঞ্চালনা করছিলাম। সেই মঞ্চের বিচারকের চেয়ারে অনেক বি’জ্ঞ বিজ্ঞ ব্যক্তি ছিলেন।

 

তাদেরই একজন ছিলেন মীর সাব্বির ভাই। এক পর্যায়ে আমি তাকে ম’ঞ্চে ডাকি বি’চারকের জায়গা থেকে কিছু শে’য়ার করার জন্য। মঞ্চে আসার পর নানা বিষয়ে কথা বলেন। শেষের দিকে মূলত এই ম’ন্তব্য করেন তিনি।’’

 

আন্তর্জাতিক মানের এই একটি ম’ঞ্চে এমন মন্তব্য খুবই দুঃ’খজনক বলে মনে করেন পায়েল। তার ভাষায়—‘আন্ত’র্জিক মানের এই মঞ্চে প্রতিযোগীরা প’শ্চিমা পোশাকে র‌্যা’ম্পে হেঁটেছেন। আমিও ও’য়েস্টার্ন আউটফিট পরে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেছি। আর সেই মঞ্চে এমন ম’ন্তব্য মেনে নেওয়ার মতো না।

 

আমি বুঝতে পারছি না উনি কি বুঝে বলেছেন, নাকি এ’ক্সসাইট’মেন্ট থেকে এটা বলে ফেলেছেন! যেভাবেই বলুক না কেন আমাকে অন্ত’ত একবার স’রি বলতে পারতেন।’

 

মীর সাব্বিরকে ক্ষ’মা চাওয়ার আহ্বান জানিয়ে পায়েল বলেন—‘মীর সাব্বির ভাই, আপনি যদি আমার এই ভি’ডিও দেখে থাকেন অবশ্যই বিষয়টি ক্লি’য়ার করবেন। আপনার যদি নারীর পো’শাক নিয়ে আপ’ত্তি থাকে সেটা আপনি আপনার পরিবারের ওপর প্রয়োগ করতে পারেন। অন্যদের পোশাক নিয়ে নাক না গ’লানোই উচিত হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *