১৯৯০ সালের ইতালি বিশ্বকা’প দিয়ে শুরু। এরপর থেকে বৈশ্বিক ফুটব’লের বৃ’হত্তম এই আসরের প্রতিটি আয়োজনে সশ’রীরে উপস্থিত ছিলেন ডে’ভিড হ্যানকক। কিন্তু ৩২ বছরের মধ্যে এই প্রথমবার ফুটবল বিশ্বকাপ ব’য়ক’ট করছেন তিনি। কারণ, কাতারের র’ক্ষণশীল নিয়’মকানুন; বিশেষ করে, স’মকা’মিতা নি’ষি’দ্ধ হওয়ায় যারপরনাই ক্ষু’ব্ধ এই ব্রিটিশ নাগরিক।

 

বিবিসির খবরে জানা যায়, পেশায় স্পোর্টস ট্রাভেল এজেন্ট হ্যানকক। ক্রীড়া সাংবাদিকদের জন্য ভ্র’মণ প্যাকেজের আয়োজন করেন তিনি। ১৯৯০ ফুটবল বিশ্বকাপ থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত প্রতিটি টুর্নামেন্টে উপস্থিত ছিলেন ৫৮ বছর বয়সী এ ব্যক্তি। কিন্তু কাতারের বি’রু’দ্ধে মানবাধিকার ল’ঙ্ঘ’ন ও বিশ্বকাপের আয়োজক হওয়া নিয়ে দু’র্নী’তির অভি’যোগে এবারের টুর্নামেন্ট ব’য়ক’ট করছেন তিনি।

 

বিশেষ করে, স’মকা’মীদের প্রতি কাতারের আচ’রণ মোটেও মেনে নিতে পারছেন না এ’সে’ক্সে’র এই বাসিন্দা। কাতার বিশ্বকাপে হ্যানককের অন্তত ২০ জন ক্লা’য়েন্ট থাকবেন। তারপরও তিনি নিজে উপসাগরীয় দেশটিতে যেতে অ’নিচ্ছুক। হ্যানকক বলেন, আমি সত্যিই এই বিশ্বকাপে খুব বেশি আ’গ্রহ পাচ্ছি না।

 

এ’লজি’বিটি (স’মকা’মী ও রূপা’ন্তরকা’মী) সম্প্রদা’য়ের প্রতি কাতার সরকার যে মনোভা’ব দেখাচ্ছে, আমি তা মেনে নিতে পারি না। আমি এও মনে করি, এই টুর্নামেন্টটিকে গ্রহণযো’গ্য হিসেবে পশ্চি’মাদের রাজি করাতে বেশ ভালো কাজ করেছে তারা। ২০১০ সালে কাতারকে বিশ্বকাপ ফুটবলের ২২তম টুর্নামেন্টের আয়োজক হিসেবে ঘোষণা করে ফিফা।

 

এ নিয়ে দু’র্নী’তির অ’ভিযো’গে ‘অজ্ঞা’ত ব্যক্তিদের’ বি’রু’দ্ধে তদ’ন্ত করছেন সুইজারল্যান্ডের প্রসিকিউটররা। তবে আজ পর্যন্ত কাউকে দো’ষী সা’ব্যস্ত করা হয়নি। কাতারে ই’সলা’মী শ’রিয়া আই’ন অনুসারে স’মকা’মিতা কঠো’রভাবে নি’ষি’দ্ধ। বিশ্বকাপ শুরুর অনেক আগেই এ বিষয়ে সত’র্ক করেছিল দেশটির সরকার।

 

বিশ্বকাপ উপলক্ষে বেশ কয়েকটি নতুন স্টেডিয়াম, হোটেল, বিনোদনকেন্দ্রসহ নানা ধরনের অবকাঠামো তৈরি করেছে কাতার। তবে এসব প্রকল্পে কর্মীদের নি’রাপ’ত্তা ও সুযোগ-সুবি’ধার অ’ভাব এবং বেশ কয়েকজন অভিবাসী ক’র্মীর মৃ’ত্যুর কারণে স’মালো’চনার মু’খে পড়তে হয়েছে উপসাগরীয় দেশটিকে। যদিও অব’হেলাজ’নিত সব ধরনের অভিযো’গ বরাবরই অ’স্বীকার করে এসেছে কাতার সরকার।

 

ডেভিড হ্যানকক জানিয়েছেন, সাম্প্রতিক মাসগুলোতে তিনি চারবার কাতারে গিয়েছেন এবং সেখানে ইংল্যান্ড টিমের হোটেলও পরিদর্শন করেছেন। তিনি বলেছেন, টুর্নামেন্ট এগিয়ে আসার পাশাপাশি আমার আরও অনেক উ’দ্বেগ রয়েছে। হ্যানকক বলেন, সেখানে (কাতারে) কিছু করার নেই, কিছুই নেই। আপনি হয়তো পাঁচতা’রকা হোটেলে গিয়ে ম’দপা’ন করতে চাইবেন, কিন্তু সেখানেও সম্ভাব্য সম’স্যা দেখতে পাচ্ছি।

 

কাতারে কেবল নি’বন্ধি’ত বার ও রেস্টুরেন্টেই ম’দ বা অ্যা’লকো’হল বি’ক্রি হয়। প্রাথমিকভাবে বিশ্বকাপ চলাকালে স্টেডিয়ামের সঙ্গে কিছু নির্দিষ্ট জায়গায় ম’দ বিক্রি হবে বলে জানিয়েছিল আয়োজকরা। কিন্তু বিশ্বকাপ শুরুর মাত্র দুদিন আগে ফিফা জানিয়েছে, স্টেডিয়াম এলাকায় দ’র্শকদের কাছে ম’দ বিক্রি নি’ষি’দ্ধ করা হয়েছে। হ্যানককের অভি’যোগ, ফিফা সবসময় বিশ্বকাপের উত্তরাধিকার নিয়ে কথা বলে। কেউ কি বলতে পারবেন, দোহা ও কাতারের জন্য কী উত্তরাধিকার হতে চলেছে?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *