কাতারে বিশ্বকাপের আয়োজন দেখে নিজেদের পৃথিবীর বাইরের দেশ ভাবছে চীন

কাতার বিশ্বকাপে খেলু’ড়ে দেশ হিসেবে অংশ নিতে পারেনি চীন। তবে বিশ্বকাপের সবচাইতে বেশি স্প’ন্সর মূ’ল্য আসছে তাদের কাছ থেকেই। তবে কাতার বিশ্বকাপ নিয়ে আ’লোচনা-স’মালো’চনার ঝ’ড় বয়ে যাচ্ছে পুরো চীন জু’ড়ে। বিশ্বে ক’রো’না ম’হামা’রী নিয়ন্ত্র’ণে আসলেও চা’য়নায় এই ভা’ইরা’সের প্রকো’প আরও বেড়েছে।

 

ক’রো’না ম’হামা’রীর পর গত ছয়মাসের মধ্যে সবচা’ইতে বাজে সময় পার করছে চীন। গতকাল (২৩ নভেম্বর) চীনে রেকর্ড সংখ্যক (২৮,০০০) নতুন ক’রো’না রো’গী চি’হ্নিত করা হয়েছে। চীনের বিভিন্ন প্রদেশে ল’কডা’উনও চলছে। তবে এর মধ্যে কাতার বিশ্বকাপ ভা’বিয়ে তুলছে দেশটির নাগরিকদের। তাদের মতে কাতারে বিশ্বকাপ আয়োজন দেখে মনে হচ্ছে চীন এই পৃথিবীর বাইরের কো’নও দেশ।

 

নেট দুনিয়ায় কাতারের বিশ্বকাপ আয়োজন নিয়ে স’মালো’চনার ঝড় তু’লেছেন চীনের নাগরিকরা। কাতারের বিশ্বকাপে গ্যালারি ভর্তি দর্শক, তাদের মুখে কোনও মা’স্ক নেই। নেই কোনও সামাজিক দূর’ত্বের বা’ধ্যবা’ধকতা। মোট কথা কাতারের বিশ্বকাপে ক’রো’না নিয়ে তেমন কোনও ক’ড়াক’ড়ি আ’ইন নেই দেখেই চ’ক্ষু চরক গাছ চীনের নাগরিকদের।

 

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ক্রীড়া প্রেমী একজন মানুষ। দেশটির জাতীয় টি’ভি চ্যা’নেলে বিশ্বকাপে খেলা সরাসরি সম্প্রচার করা হচ্ছে। সেখানে কাতারের বিশ্বকাপের সব আয়োজনই দেখতে পাচ্ছে দেশের নাগরিকরা। কাতারের বিশ্বকাপ আয়োজন দেখে চীনের নাগরিকদের মনে হচ্ছে তারা পৃথিবীর বাইরের কো’নও দেশে আছেন।

 

কাতার বিশ্বকাপে পুরো বি’শ্ব থেকে মানুষ খেলা দেখতে গেছেন। চীন থেকেও অনেক নাগ’রিক খেলা উপভো’গ করতে কাতারে গেছেন। তবে চীন থেকে কাতারের উদ্দে’শ্যে ফ্লাইটের সংখ্যা অনেক ক’মিয়ে আনা হয়েছে ক’রো’নার কারণে। অনেকেই এই ইভে’ন্টটি দেখে নিজেদের চরম ভাবে বি’চ্ছি’ন্ন মনে করছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম উই চ্যা’টে একটি ক্যাম্পেইন দ্রুত ছ’ড়িয়ে পড়ে। যেখানে লেখা হয় ‘কাতার এবং চীন কি একই গ্রহে’র দেশ’?

 

এছাড়া টু’ইটার এবং অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চীনের নাগরিকদের এমন পোষ্ট দ্রু’তই ছ’ড়িয়ে পরছে। এক চীনের নাগরিক লিখেছেন, ‘কো’ভি’ড ১’৯ পরী’ক্ষার প্র’মাণ ছাড়া কয়েক হাজার দর্শককে এক স’ঙ্গে জ’ড়ো হতে দেখাটা অ’দ্ভুত। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে কোনও আ’সন খালি নেই। সত্যিই গ্রহটি বিভ’ক্ত হয়ে গেছে। ’

 

আরেকজন লিখেছেন, ‘পৃথিবীর একদিকে কা’র্নিভাল চলছে অন্যদিকে পাবলিক প্লেসে যাওয়ার নি’ষেধা’জ্ঞা জা’রি হয়েছে। কেউ কেউ বলছেন যে তাদের সন্তানদের বোঝাতে অ’সুবিধা হচ্ছে কেন বিশ্বকাপের দৃশ্যগুলি দেশের চিত্র থেকে, তাদের বর্তমান পরিস্থিতি থেকে আ’লাদা। চীনে অনেকেই আছেন যারা বিদেশী দেশগুলির খোলার স’মালো’চনা করছেন। কারণ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এখ’নও কো’ভি’ড-১’৯ ভা’ইরা’সকে ‘বৈশ্বিক জরু’রি অবস্থা’ বলে অভিহি’ত করেছে।

এই ক্যাটাগরির আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *