দুই দলেরই বিশ্বকা’প শুরু হয়েছে হা’র দিয়ে। টি’কে থাকতে তাই আজ জয়ের বিক’ল্প ছিল না কাতার ও সেনেগালের সামনে। হা’রলেই ছি’টকে যেতে হতে পারে বিশ্বকাপ থেকে। এমন বাঁচা-ম’রার ম্যাচে অনা’য়াসেই জয় তুলে নিল আফ্রিকান চ্যাম্পিয়নরা।
আল থুমামা স্টেডিয়ামে আজ ২০২২ বিশ্বকাপের গ্রুপ ‘এ’-এর ম্যাচে স্বাগতিকদের ৩-১ গোলে হা’রিয়েছে সেনেগালিজরা।

 

প্রথমার্ধে ফ’রোয়া’র্ড বোলায়ে দিয়ার গোলে এগিয়ে যায় আফ্রি’কার সিং’হরা। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুর দিকে ব্যবধান দ্বি’গুণ করেন আরেক ফরোয়ার্ড ফামাহা ডিডিউ। শেষদিকে একটি গোল শো’ধ করেন কাতারের মোহাম্মেদ মুনতারি। তবে কিছুক্ষণ পর সেই ব্যবধানও ঘু’চিয়ে দেন সেনেগালের ফ’রোয়ার্ড বা’ম্বা দিয়েং।

 

এর আগে উ’দ্বোধ’নী দিনে ইকুয়েডরের কাছে ২-০ গোলে হেরে’ছিল কাতার। আর নেদারল্যান্ডসের সঙ্গে ল’ড়াই জ’মিয়েও শেষ পর্যন্ত ২-০ গোলে হে’রেছে সেনেগাল। ফলে দুই ম্যাচে ১ জয় ও ১ হারে ৩ পয়ে’ন্ট হলো সেনেগালের। সমান পয়েন্ট আছে নেদারল্যান্ডস ও ইকুয়েডরের দখলেও। তবে পরের দুই দল ম্যাচ খে’লেছে ১টি করে। অন্যদিকে দুই ম্যাচেই হে’রে খাদের কি’নারে পৌঁছে গেছে কাতার।

 

এবারই প্রথম কোনো ফুটবল ম্যাচে মু’খোমু’খি হলো কাতার ও সেনেগাল। প্রথমবারেই কাতারকে পার্থ’ক্যটা বু’ঝিয়ে দিয়েছে আফ্রিকার দলটি। শুরুতে বল দখল আর আ’ক্রম’ণে স্প’ষ্ট আ’ধিপ’ত্য ছিল তাদের। আর কাতার ব্য’স্ত ছিল রক্ষণ সাম’লাতে। এমনকি নিজেদের অ’র্ধ থেকেই বের হতে পারছিল না প্রথমবারের মতো স্বাগতিক হিসেবে বিশ্বকাপ খেলা এই দলটি। উল্টো প্রথমার্ধে বেশ কয়েকটি সুযোগ নষ্ট করে সেনেগাল।

 

প্রথমার্ধের শেষদিকে আক্রমণের গতি বাড়ায় সেনেগাল। ৪১তম মিনিটে ফলও পায় তারা। বাঁ প্রান্ত থেকে বক্সের দিকে বাঁকানো ক্রস পাঠান দিয়াত্তা। বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে পা ছোঁয়াতে ব্যর্থ হন কাতারি ডিফেন্ডার বুয়ালেম খুউখি। বল লাফিয়ে তার শরীর স্পর্শ করে যায় দিয়ার সামনে। সুযোগ কাজে লাগিয়ে কাতারি গোলরক্ষক মেশাল বারশামকে পরাস্ত করে বল জালে জড়িয়ে দেন দিয়া।

 

দ্বিতীয়ার্ধে কাতারের ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্নে জোর ধাক্কা দেন সেনেগালের ফামাহা ডিডিউ। ৪৮তম মিনিটে সতীর্থের কর্নারে দারুণ হেড নেন এই ফরোয়ার্ড। বল গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে জালে প্রবেশ করে। সেই সঙ্গে সেনেগালের জার্সিতে সবচেয়ে বেশি বয়সে (২৯ বছর ৩৪৫ দিন) গোল করার রেকর্ড গড়লেন ডিডিউ। দুই গোল হজম করার পর যেন গা ঝাড়া দিয়ে ওঠে কাতার।

 

বেশ কয়েকটি দারুণ আক্রমণও শানায় তারা। তবে ফল পেতে তাদের অপেক্ষা করতে হয় ৭৮তম মিনিট পর্যন্ত। দারুণ এক হেডে ব্যবধান কমান মোহাম্মেদ মুনতারি। বিশ্বকাপে কাতারের এটাই প্রথম গোল। তবে ৮৪তম মিনিটে কাতারের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেন বাম্বা দিয়েং। এরপর আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি স্বাগতিকরা। ফলে বড় জয়ে নিজেদের আশা জিইয়ে রাখলো সেনেগাল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *