ফুটবল বিশ্বকাপের পর আরও বিশাল ইভেন্টের আয়োজন করতে চায় কাতার

২০১০ সালে কাতারকে ফুটবল বিশ্বকাপ আয়োজক দেশ ঘোষণা করে ফিফা। এরপর থেকেই স’মালোচ’নার শি’কার হয় দেশটি। বিশেষ করে স্টেডিয়াম তৈরিতে অসংখ্য শ্রমিকের মৃ’ত্যু, নানাবিধ মু’সলিম আ’ইন নিয়ে বিত’র্কের মুখে পড়ে তারা।

 

তবে ২০২২ বিশ্বকাপের নকআউ’ট পর্ব শেষ হতে সেসব বিত’র্ক উবে গেছে। তাই একে সফল বলছে কাতার কর্তৃপ’ক্ষ। পরিপ্রে’ক্ষিতে ২০৩৬ অলিম্পিক আয়োজন করতে চাচ্ছে তারা। এরই মধ্যে এজন্য ম’রিয়া হয়ে উঠেছে দেশটির সরকার।

 

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবে’দনে এসব তথ্য জানা গেছে। অবশ্য এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে আবে’দন করেনি কাতার। তবে আগামীতে এজন্য নি’লাম করতে পারে তারা। কিন্তু কবে না’গাদ ২০৩৬ সালের আয়োজক দেশের নাম ঘোষণা করা হবে, তা জানায়নি আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি (আইওসি)।

 

তবে কাতার সেই নিলামে অংশ নেবে, সেটা নিশ্চিত। বাস্তবে সেই ছাড়পত্র পেলে বিশ্বের প্রথম মু’সলিম দেশ হিসেবে অলিম্পিক আয়োজন করবে তারা। ফুটবল বিশ্বকাপের মতো ওই বৈ’শ্বিক ইভে’ন্টও বছরের শেষদিকে আয়োজন করতে চায় দেশটি। কাতারি কর্তৃপক্ষ বলছে, ফুটবল বিশ্বকাপের জন্য নতুন করে রাস্তাঘাট, বিমানবন্দর, মেট্রোরেল, অতিথিশালা নির্মাণ করা হয়েছে।

 

এখন থেকেই সেগুলোর নিয়মিত র’ক্ষণাবে’ক্ষণ করা হবে। ফলে ১৪ বছর পর অলি’ম্পিক আয়োজন করতে অবকাঠামোগত কোনো অ’সুবিধা হবে না। বরং পরিকাঠামোর আরও উন্নতি হবে। কাতার সরকারের ভাষ্যমতে, ফুটবল বিশ্বকাপের সাফল্য অলিম্পিক আয়োজনে অন্য দেশেগুলোর চেয়ে কাতারকে এ’গিয়ে রাখবে।

 

২০০৬ সালে এখানে এশিয়া গে’মস অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ২০৩০ সালে এটির আয়োজক আমরা। বড় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা আয়োজনের সব পরিকাঠামো রয়েছে আমাদের। ফলে আরেকটি দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ আয়োজনে কোনও অসু’বিধা হবে না।

 

২০২৪ অলিম্পিক হবে প্যা’রিসে। পরের দুটি হওয়ার কথা লস অ্যা’ঞ্জেলেস ও ব্রিসবেনে। অধিকন্তু ২০৩০ সালের আয়োজক এখনও ঠিক হয়নি। এর মাঝেই ২০৩৬ নিয়ে তো’ড়জো’ড় শুরু করেছে কাতার।

এই ক্যাটাগরির আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *