আবুধাবির শেখ জায়েদ গ্র্যান্ড মসজিদে একটি হালকা বিমান বা গ্লাই’ডার বি’ধ্ব’স্ত হয়েছে। এতে বিমানটির পাইলট আহ’ত হয়েছেন। প্রযুক্তিগত কারণে দু’র্ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় নিরাপ’ত্তা কর্মকর্তারা।

 

সৌদি আরবে সংবাদমাধ্যম আরব নিউজের প্রতিবেদন অনুযায়ী, জেনারেল সিভিল এভিয়েশন অথরিটির বরাত দিয়ে রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ডব্লিউএএম জানায়, প্রযু’ক্তিগত ত্রু’টির কারণে একটি সেসনা লাইট সিভিল একক-ইঞ্জিন ফিক্সড-উইং বিমান শেখ জায়েদ গ্র্যান্ড মসজিদের আউটডোর পার্কিং লটে বি’ধ্ব’স্ত হয়।

 

বুধবার এ ঘটনার পরপরই ন্যাশনাল সার্চ অ্যান্ড রেসকিউ সেন্টার, আবুধাবি পুলিশের জেনারেল কমান্ড এবং জেনারেল সিভিল এভিয়েশন অথরিটিসহ (জিসিএএ) সংশ্লিষ্ট বাহিনী অবিল’ম্বে দু’র্ঘটনা’স্থলে ছুটে গিয়ে নিরাপ’ত্তা জোরদার করে। প্রাথমিক তদ’ন্তে জানা গেছে, বিমানটি একটি একক ইঞ্জি’নের সেসনা ক্যারাভান লাইট প্লেন বা গ্লাইডার।

 

আল বাতিন বেসরকারি বিমানবন্দরে অবতরণের পথে বিমানটিতে প্রযুক্তিগত ত্রু’টির কারণে দুর্ঘট’নাটি ঘটে। ছোট বেসামরিক বিমানটি কর্মীবিহীন এলাকায় বি’ধ্ব’স্ত হয়। ফলে বাইরের মানুষের হ’তাহ’তের কোনো ঘটনা ঘটেনি। কর্তৃপক্ষ জানান, দুর্ঘ’টনার ফলে পাইলট আহ’ত হন এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা ও পর্যবেক্ষণের জন্য তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

 

জেনারেল সিভিল এভিয়েশন অথরিটি (জিসিএএ) জানিয়েছে, ঘটনার কারণ ও প্রতিক্রি’য়া নিয়ে তদ’ন্ত চলছে। আবুধাবি পুলিশ দুর্ঘটনার বিষয়ে গু’জব না ছ’ড়ানোর জন্য জনসাধারণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। দ্য ন্যাশনাল নিউজ এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, আবুধাবির শেখ জায়েদ গ্র্যান্ড মসজিদের বাইরে বি’ধ্ব’স্ত হওয়া বিমানটি ‘অপেশাদার-নির্মিত’ কি’ট বিমান ছিল।

 

বিমানটি মসজিদের মূল প্রবেশদ্বারের একটু সামনেই বিধ্ব’স্ত হয়। ‘কিট প্লেন’ নামে পরিচিত এই ধরনের উড়োজাহাজ সাধারণত সংক্ষি’প্ত আনন্দ ভ্রমণের জন্য ব্যবহৃত হয়। হালকা ওজনের কারণে এগুলো সহজেই টেক-অফ এবং অব’তরণ করতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.