বিয়েকে স্ম’রণীয় করে রাখতে কনেকে নিয়ে আসতে হেলিকপ্টারে চ’ড়ে বিয়ে বাড়িতে গেলেন কাতার প্রবাসী বর। অন্য বরযাত্রীরা স’ড়ক পথে কনের বাড়িতে পৌছান। বিকেলে একই মাঠে কনেকে নিয়ে অবত’রণ করেন বর।

 

জৈন্তাপুর উপজেলায় এই প্রথম কোন ব্যক্তির বিয়ের আয়োজনে হেলিকপ্টারে বর যা’ত্রা। আর, সেই দৃ’শ্য দেখতে ভি’ড় করলেন শত-শত মানুষ। উৎসুক লোকজনের ভি’ড় সাম’লাতে ও নিরাপ’ত্তার দায়িত্ব পালনে ছিল পুলিশও।

 

জানা যায়, বুধবার (৭ সেপ্টেম্বর) সিলেটের জৈন্তাপুরের (হরিপুর) শিকার খাঁ গ্রামের বরের বাড়ির পাশ্ববর্তী একটি মাঠ থেকে বর হেলিক’প্টার চ’ড়ে কনে আনতে যাত্রা শুরু করেন।

 

কানাইঘাট উপজেলার সদর ইউনিয়নের নিজ চাউরা গ্রামের কনের বাড়ির পাশ্ববর্তী একটি মাঠে আ’কাশযা’ন অবতরণ করলে বরকে বরণ করেন কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মোমিন চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান খাদিজা বেগম, কনের পরিবারের সদস্যস’হ বিয়েতে উপস্থিত অতিথি বৃন্দ।

 

আর এই দৃশ্য দেখার জন্য উৎসুক জনতার ভি’ড় ছিলো চোখে পড়ার মতো। পারিবারিক সুত্রে জানা যায় জৈন্তাপুর উপজেলা ফতেহপুর ইউনিয়নে শিকার খাঁ গ্রমের মৃ’ত আব্দুন নুরের ছেলে কাতার প্রবাসী আজমল আলীর সাথে কানাইঘাট সদর ইউনিয়ননের নিজ চাউরা উত্তর গ্রামের কুয়েত প্রবাসী সামছুল ইসলামের একমাত্র মেয়ে কুলছুমা বেগম আঁখি’র বিয়ে পারিবারিক ভা’বেই ঠিক হয়।

 

জৈন্তাপুর মডেল থানার ওসি গোলাম দ’স্তগীর আহমদ জানান, হেলিকপ্টারে চ’ড়ে বিয়ের আয়োজনের খবর আগে থেকেই পুলিশকে অবগ’ত করেছিলেন বরের পক্ষ। তাই নিরাপ’ত্তার জন্য মাঠে পুলিশ যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.