বিশ্বকাপ উপভোগ করতে আসা দর্শকদের বি’নোদনের জন্য সমুদ্র সৈকতে বিশেষ আয়োজন করছে কাতার। নাচ-গানের সঙ্গে থাকবে ভো’জন রসিকদের জন্য খাবার। পাল্লা দিয়ে সুযোগ সুবিধা বাড়াচ্ছে প্রতিবেশী আরব আমিরাত। দেশটির বিভিন্ন ফ্যান জোনে থাকবে অ্যা’লকোহ’লের ব্যবস্থাও।

 

অতি র’ক্ষণশীল মনোভাবের জন্য বরাবরই পশ্চিমাদের স’মালো’চনার মুখে বিশ্বকাপ আয়োজক কাতার। অ্যা’লকোহ’লের অবা’ধ বিক্রি আর খো’লামেলা পোষাক নিয়ে কঠোর হলেও গ্রেটেস্ট শো অন আর্থে সম’র্থকদের বিনোদনের জন্য চে’ষ্টার কমতি নেই মধ্যপ্রাচ্যের দেশটির। এবার টুর্নামেন্টের সময় দর্শকদের জন্য বিশেষ সমু’দ্র সৈকত চালুর ঘোষণা দিয়েছে দেশটি।

 

বিশ্বকাপের জন্য গড়ে উঠা লুসাইল শহরে হবে সেই বিশেষ ই’ন্টারটেইনমেন্ট বিচ। যেখানে ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত অবস্থান করতে পারবেন পর্যটকরা। থাকবে নাচ-গানের ব্যবস্থা। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মুখরোচক খাবার, পানীয়র স’ঙ্গে মিলবে লাইভ কনসার্ট উপভোগের সুযোগ।

 

যৌথভাবে মেগা এই প্রক’ল্প বাস্তবায়ন করবে ইউভে’ঞ্চার ও কেতাইফান। আর পরিচালনার দায়িত্বে থাকবে মা’দাইন আল দোহা ফিউশন হসপিটালিটি এন্ড এক্সিবেউশন্স। তবে সেই বিচে অ্যা’লকো’হলে’র ব্যবস্থা থাকবে কিনা তা খো’লা’সা করেনি কর্তৃপক্ষ।

 

কাতারের মতো এতোটা গোপ’নীয়তা নেই আরব আমিরাতের। এরই মধ্যে জানিয়েছে বিশ্বকাপের সময় পার্ক, সমুদ্র সৈকতসহ বিভিন্ন জায়গায় হবে ফ্যান জোন। যেখানে অবা’ধে মিলবে অ্যা’লকোহ’ল।

 

প্রতিবেশি কাতারের অ’পর্যাপ্ত আবাসন ব্যবস্থা, ক’ঠোর সামাজিক বিধি নিষে’ধের বালাই কাজে লাগিয়ে পশ্চিমা দর্শকদের টানতে চায় ইউএই। গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ চলাকালে অন্তত দশ লাখ পর্যটকের প্রত্যাশা করছে দুবাই স্পোর্টস কাউন্সিল।

 

এদিকে, বিশ্বকাপ আয়োজনের নেপথ্য নায়ক শ্র’মিকদের ক্ষ’তিপূরণ দিতে এক বি’বৃতিতে ফিফাকে অনুরোধ জানিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। পাল্টা বিবৃ’তিতে ফিফা জানিয়েছে, শ্রমিকদের অধিকার র’ক্ষায় প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থাই নেবে তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.